আপনার কি বসে বসে ঘুমানোর অভ্যাস? তাহলে জেনে নিন কি কি হতে পারে আপনার

আপনি কি কখনো ল্যাপটপ বা ডেস্কটপে কাজ করার সময় গভীর ঘুমে তলিয়ে গেছেন? এটি হয়তো আপনার জন্য আরামদায়ক ছিল, কিন্তু ঘুম থেকে ওঠার পর ভয়ানক পিঠে ব্যথা, ঘাড় এবং কাঁধে শক্ত অনুভব করেছেন? উত্তর যদি হ্যাঁ হয়, তাহলে এটি দীর্ঘ সময় বসে থাকার এবং গতিহীন থাকার কারণে ঘটেছে। ঘুমানোর সময় বসে থাকা বা দাঁড়িয়ে থাকা প্রাণিজগতে একটি সাধারণ ঘটনা, তবে মানবদেহ এই জাতীয় অভ্যাসে অভ্যস্ত নয়।

বসে থাকা অবস্থায় নিষ্ক্রিয়তার কারণে তা আপনার জয়েন্টগুলিতে একটি ভারী চাপ নিতে পারে এবং সেগুলো শক্ত করে তুলতে পারে। এটি আপনার গুরুতর রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে তুলতে পারে যেমন ডিপ ভেইন থ্রম্বোসিস। বসে ঘুমানোর বিপদগুলো জেনে নিন এবং এটি মারাত্মক হতে পারে কিনা তা খুঁজে দেখুন। বসা অবস্থায় ঘুমানো আরামদায়ক হতে পারে, কিন্তু এটি জয়েন্ট এবং পিঠে ব্যথার কারণ হতে পারে।

আমরা প্রায়ই আমাদের চেয়ারে আরাম বোধ করি, কাজ করার সময় ডেস্কে ঘুমিয়ে পড়ি। এমন স্মৃতি ছাড়া তো আমাদের স্কুলের দিনগুলো অসম্পূর্ণ। তবে ঘন ঘন এই অভ্যাস স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে নানা সমস্যা ডেকে আনতে পারে।

এক জায়গায় দীর্ঘ সময় বসে থাকা বা নিষ্ক্রিয় থাকা হতে পারে শরীরের ব্যথার কারণ। যা আমাদের অঙ্গবিন্যাসকেও ধ্বংস করতে পারে। এটি জয়েন্টগুলোতে ব্যথার সৃষ্টি করতে পারে। স্ট্রেচিংকে নমনীয়তা, অঙ্গবিন্যাস উন্নত করা এবং জয়েন্টে ব্যথা প্রতিরোধ করার একটি দুর্দান্ত উপায় বলে মনে করা হয়। বিছানায় শুয়ে ঘুমালে তা আমাদের অঙ্গপ্রত্যঙ্গ এবং জয়েন্টগুলো প্রসারিত করতে সাহায্য করতে পারে। এদিকে বসে থাকা অবস্থায় ঘুমালে রক্ত ​​সঞ্চালন ব্যাহত হতে পারে, নড়াচড়া সীমিত করতে পারে, যা আরও জটিলতার দিকে নিয়ে যায়।

স্বল্পমেয়াদী সমস্যা ছাড়াও, বসা অবস্থায় ঘুমালে তা আপনাকে ডিপ ভেইন থ্রোম্বোসিসের মতো রোগের দিকে নিয়ে যেতে পারে। যা রক্ত ​​জমাট বেঁধে যাওয়ার কারণে ঘটতে পারে। এটি থ্রম্বাস নামেও পরিচিত। এটি এক জায়গায় দীর্ঘ সময় ঘুমানো বা বসে ঘুমানোর একটি নেতিবাচক ফলাফল হতে পারে।

ডিপ ভেইন থ্রোম্বোসিস যদি নির্ণয় না করা হয় বা চিকিত্সা না করা হয় তবে এটি একটি জরুরি পরিস্থিতির দিকে নিয়ে যেতে পারে, এমনকি গুরুতর পরিস্থিতিতে মৃত্যুর কারণও হতে পারে। সবচেয়ে বড় ঝুঁকি দেখা দেয় যখন জমাট বাঁধা রক্তের কিছু অংশ ভেঙে যায় এবং ফুসফুস বা মস্তিষ্কে চলে যায়। ফলে মারাত্মক ক্ষতি হয়, হঠাৎ মৃত্যু ঘটে।

ভারতের ন্যাশনাল ব্লাড ক্লট অ্যালায়েন্স এর দেওয়া তথ্য অনুযায়ী প্রতিদিন ২০০ জনেরও বেশি মানুষ রক্ত ​​জমাট বাঁধার পরিণতিতে মারা যায়। ভুক্তভোগীদের মধ্যে ২৫ থেকে ৮৫ বছর বয়স্ক ব্যক্তিও ছিলেন।

যেসব লক্ষণ দেখলে সতর্ক হবেন

* পায়ের পেশী, গোড়ালি বা পায়ে ফোলাভাব এবং ব্যথা।

* প্রদাহের ফলে লাল ও উষ্ণ ত্বক।

* হঠাৎ পায়ের গোড়ালি বা পায়ে ব্যথা।

সোজা হয়ে ঘুমানোর কোনো উপকার আছে কি?

বসে থাকা অবস্থায় ঘুমাতে চাইলে সবসময় রিক্লাইনার অবলম্বন করার পরামর্শ দেওয়া হয়। যদিও এই জাতীয় ঘুমের অবস্থান এড়ানো উচিত। তবে এটি কোনো কোনো ক্ষেত্রে গর্ভবতী নারীদের জন্য উপকারী হতে পারে, শুয়ে ঘুমাতে অসুবিধা হয়। এটি স্লিপ অ্যাপনিয়ায় ভুগছেন এমন ব্যক্তির জন্য ঘুমানোর একটি দুর্দান্ত উপায়। স্লিপ অ্যাপনিয়া হলো এক ধরনের ঘুমের ব্যধি যা ঘুমের সময় শ্বাস-প্রশ্বাস ব্যাহত হলে ঘটে। এটি অ্যাসিড রিফ্লাক্সকেও সহজ করতে পারে এবং গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সমস্যার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের আরও ভালোভাবে ঘুমাতে সাহায্য করতে পারে।bs

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© 2022 Tips24 - WordPress Theme by WPEnjoy