আপনি কি থালা সাজিয়ে খাবার খাচ্ছেন? তাহলে সাবধান! হতে পারে এই জটিল রোগ

খেতে বসলেই আমরা চারিদিকে খাবার সাজিয়ে বসি। এছাড়াও অতিথি এলে প্লেট ভর্তি খাবার পরিবেশনেই আমরা অভ্যস্ত। প্লেটে দুরকম ভাজা কম হলে কিংবা যদি একটা রসগোল্লা কম থাকে তাহলে অনেকেরই মনে হয় এতে অতিথির অপমান করা হল। জন্মদিন হোক কিংবা কোনও অনুষ্ঠান, থালা ভর্তি খাবার সাজিয়ে পরিবেশন ভারতীয় সংস্কৃতির অঙ্গ। সুন্দর ছবির জন্যই অনেকে প্লেটে দুটোর পরিবর্তে পাঁচরকম মিষ্টি সাজিয়ে পরিবেশন করেন।

কিন্তু এভাবে থালা সাজিয়ে খাবার পরিবেশন আদতে শরীরের পক্ষে ক্ষতিকারক, তা কি জানতেন? কারণ চোখের সামনে থালা ভর্তি মিষ্টি কিংবা অন্য কোনও খাবার থাকলে লোভ সংবরণ মুশকিল হয়। সবাই তা পারেন না। যখন একটা মিষ্টি খেলেই শরীরের চাহিদা পূরণ সম্ভব, সেখানে হয়তো কেউ তিনটি মিষ্টি খেয়ে ফেললেন। শরীরে অতিরিক্ত ক্যালোরি জমা তো হলই এমনকী এখান থেকে হতে পারে জটিল ব্যাধি। আর তাই বিশেষজ্ঞরা জোর দিচ্ছেন পরিমিত আহারে। খুব কম নয়, খুব বেশিও নয়…শরীরের ঠিক যতটা প্রয়োজন ততটাই খান। প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত খেলে যে যে সমস্যা আসতে পারে

অত্যধিক মেদ জমেঃ শরীরে প্রচুর পরিমাণ মেদ জমে। বেশি খাওয়া মানেই বেশি ক্যালোরি জমা হওয়া। আর পর পর খাবার খেতেই থাকলে সেই ক্যালোরি বার্ন হয় না। ফলে শরীরে হতে থাকে ফ্যাটের স্তর। যেখান থেকে ওবেসিটি আসতে বাধ্য।

খিদে নিয়ন্ত্রণ হয় নাঃ বেশি খাওয়া অভ্যেস হয়ে গেলে শরীর খিদে নিয়ন্ত্রণের ক্ষমতা হারায়। অর্থাৎ কখন খিদে পাচ্ছে, কতটা খাওয়া প্রয়োজন এই অনুভূতিটাই চলে যায়। বেশি খাওয়া মানেই নুন, চেনি বেশি মাত্রায় খাওয়া। এখান থেকে হরমোনের তারতম্য হয়। ফলে তখন খাবার খাওয়ার কোনও আনন্দ থাকে না।

রোগের প্রকোপ বাড়েঃ ওবেসিটি ছাড়াও শরীরে আরও পাঁচটা রোগ এসে জড়ো হয়। যার মধ্যে খুব সাধারণ হল হার্টের সমস্যা, ডায়াবিটিস ও স্ট্রোক। এছাড়াও রক্তচাপ বেশি থাকে। এমনকী সুগারের মাত্রাও বেড়ে যায় অনেকখানি। বিভিন্ন ক্রনিক রোগ শরীরে বাসা বাঁধতে শুরু করে। কোশে শর্করার পরিমাণ বেড়ে যায়। কোনও কারণে অসুস্থ হলে তখন সব ওষুধ ঠিকমতো কাজ করে না। ফলে জীবন বাঁচানোই দায় হয়ে যায়।

মস্তিষ্ক ঠিক করে কাজ করে নাঃ সমীক্ষা বলছে কোনও মানসিক চাপ, উদ্বেগের মধ্যে থাকলে অনেকেই বেশি খেয়ে ফেলেন। এছাড়াও যাঁরা প্রথম থেকেই পরিমাণে একটু বেশি খান তাঁদের সেই অতিরিক্ত ওজন প্রভাব ফেলে স্মৃতিশক্তিতে। কখন খাচ্ছেন তা নিজেরাই মনে রাখতে পারেন না। যেখান থেকে অতিরিক্ত খাওয়া হয়ে যায়।

হজমের সমস্যাঃ বেশি খেলে হজমের সমস্যা, গ্যাস- অম্বলের সমস্যা এসব আসতেই পারে। এবং আসাটা খুব স্বাভাবিক। বেশি খেলেই হাইপোগ্লাইসেমিয়া হয়। এছাড়াও অনিদ্রা, মাথা ধরা, পালস রেট বেড়ে যাওয়া এসব থাকেই। এছাড়াও ইনসুলিন ক্ষরণ বেড়ে যায়। খেয়ে যদি বমি, গ্যাস, অম্বলের সমস্যায় ভুগতে হয় তাহলে সেখান থেকে হতে পারে বড় কোনও সমস্যা। আসতে পারে ক্যানসারের মতো ব্যাধিও। যে কারণে কখনই পেট ভরে কিংবা থালা ভর্তি করে খাবার খাবেন না। এমনকী থালা ভর্তি ফলও নয়।bs

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© 2022 Tips24 - WordPress Theme by WPEnjoy