প্রতিনিয়ত লিপস্টিক ব্যবহার করছেন? তাহলে অবশ্যই জেনেনিন এই বিষয়গুলো

মেয়েদের ভ্যানিটি ব্যাগে নিত্যসঙ্গী লিপস্টিক। সাজে পূর্ণতা আনতে লিপস্টিকের বর্ণিল রং সাহায্য করে। এটাই কিন্তু বুমেরাং হতে পারে ভুলভাল ব্যবহার আর কেনার আগের অসতর্কতার কারণে। বিশেষ করে ত্বক ও ঠোঁটের টোনের সঙ্গে মিলিয়ে লিপস্টিক কেনা জরুরি। এ ছাড়া আরো কিছু বিষয় আছে, যেগুলো লিপস্টিক কেনার আগে অবশ্যই প্রত্যেক নারীকে খেয়াল রাখা উচিত।

উপাদান দেখে কিনুন

প্রতিটি লিপস্টিকের মোড়কেই এতে বিদ্যমান নানা উপাদানের কথা উল্লেখ থাকে। শুধু তাই নয়, প্রতিটি উপাদান কী পরিমাণে ব্যবহূত হয়েছে সেটাও লেখা থাকে মোড়কের গায়ে। এসব উপাদান আপনার ত্বকের সঙ্গে উপযোগী কি না এটা মিলিয়ে তারপরই লিপস্টিক কিনুন। এ জন্য আগেই একজন স্কিন কেয়ার অথবা রূপ বিশেষজ্ঞের সঙ্গে পরামর্শ করে নিতে পারেন। তিনি বলে দেবেন আপনার ব্যবহৃত লিপস্টিকে কী কী উপাদান থাকা উচিত আর কী কী উপাদান থাকা অনূচিত। বাজারে প্রচলিত অনেক লিপস্টিকে থ্যালেট, লেড বা সিসার মতো উপাদান বিদ্যমান থাকে। আবার অনেক কম্পানি প্রসাধনীতে এমন কিছু প্রিজারভেটিভ ব্যবহার করে যা অনেক সময় ত্বকের জন্য ক্ষতির কারণ হতে পারে। এসব উপাদান দেখেশুনে তারপর লিপস্টিক কিনুন।

প্রাধান্য দিন প্রাকৃতিক উপাদান

এটা তো কমবেশি সবাই জানেন, ত্বকের জন্য প্রাকৃতিক উপাদান বেশ উপকারী। এসব প্রাকৃতিক উপাদান যদি লিপস্টিকে থাকে তাহলে তা আরো নিরাপদ, বিশেষ করে ঠোঁটের মতো স্পর্শকাতর ত্বকের জন্য। লিপস্টিকে থাকা নানা রাসায়নিক উপাদান ঠোঁটের পাতলা ত্বকের জন্য অনেক বেশি পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া তৈরি করতে পারে। এ জন্য প্রাকৃতিক উপাদানসমৃদ্ধ লিপস্টিক কেনার চেষ্টা করুন। যেসব লিপস্টিকে জোজোবা তেল, অলিভ অয়েল, শিয়া বাটার, ক্যাস্টর অয়েলের মতো উপাদান আছে, সেগুলো কিনতে পারেন।

স্কিন টোন মিলিয়ে রং বেছে নিন

ত্বকের সঙ্গে মিলিয়ে লিপস্টিক তো কিনবেনই, সঙ্গে মনে রাখুন গাঢ় বা ডার্ক শেডের লিপস্টিক মানেই কিন্তু তাতে হেভি মেটালের বেশি উপস্থিতি। আপনার স্কিনের সঙ্গে হয়তো ডার্ক বা গাঢ় শেডের লিপস্টিকই বেশি মানায়; তাই বলে সব সময় সেটাই ব্যবহার করতে হবে তা নয়। একটু কম গাঢ় রঙের লিপস্টিক বেছে নিলেও ক্ষতি নেই। যদি গাঢ় শেডই মানায় তবে প্রাকৃতিক রং বা ভেষজ গাঢ় রঙের লিপস্টিক কিনুন। লিপস্টিকের টেক্সচার কেমন সেটাও দেখে নিতে পারেন। ঠোঁটের টেক্সচার ভালো হলে ম্যাট লিপস্টিক চলতে পারে। তবে ঠোঁট ফাটার প্রবণতা থাকলে ম্যাট লিপস্টিক না নেওয়াই ভাল।

যদি দীর্ঘ সময় লিপস্টিক ঠোঁটে রাখতে চান তবে ম্যাটই ভালো। কারণ এটার স্থায়িত্ব বেশি। আপনার ঠোঁটের আবরণ পাতলা আর শুষ্ক হলে ক্রিমি লিপস্টিক ঠোঁটকে সুরক্ষা দেবে। যারা দীর্ঘ সময় বাইরে কাটান তাদের জন্য ট্রান্সফার রেজিস্ট্যান্ট লিপস্টিক ভালো কাজে দেবে। সকালে লাগালে রাত পর্যন্ত স্থায়ী এ লিপস্টিক। জলে ধুলেও সহজে উঠতে চায়। এটা তোলার জন্য সলিউশন ব্যবহার করতে হয়। গায়ের রং শ্যামলা হলে গাঢ় লাল বা কমলা রঙের লিপস্টিক ভালো দেখাবে। গায়ের রং উজ্জ্বল হলে উজ্জ্বল, গাঢ় মেজেন্টা বা নিয়ন রঙের লিপস্টিক ভালো মানাবে। আবার পিচ রঙের লিপস্টিক কিন্তু যেকোনো ত্বকের সঙ্গেই সহজে মানিয়ে যায়।bs

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© 2022 Tips24 - WordPress Theme by WPEnjoy