রাতজাগা, রোদ্দুরে পিকনিক – সব সামলেও ত্বক-চুল ঝলমলে রাখার ম্যাজিক মন্ত্র

এই মরশুমটায় হিসেবের একটু গোলমাল হয়ে যায়ই। রাত জেগে পার্টি চলে, মদ্যপান, মিষ্টি খাওয়ার উপরেও নিয়ন্ত্রণ থাকে না। তা ছাড়া শীতের দিনে রোদ্দুরে থাকতেও বড়ো আরাম লাগে। ফলে পিকনিক বলুন বা ছুটির দুপুরে ছাদে ব্যাডমিন্টন খেলা – অনেকটা সময় আমরা রোদে কাটাই। তার ফলে ত্বকে দেখা দেয় পিগমেন্টেশন। একে রুক্ষতা, তার উপর সানবার্ন – এই দুইয়ের যুগপৎ আক্রমণে ত্বক হয়ে পড়ে নিষ্প্রাণ। আপনি নকি পার্টির মরশুমেও নুসরত জাহানের মতো ঝলমল করতে চান? তা হলে আমাদের পরামর্শ মেনে চলুন, আখেরে উপকারই হবে।

প্রথম যেটা আপনাকে করতে হবে, তা হল – কেমিক্যাল ব্যবহারের পরিমাণ কমান। আস্থা রাখুন দুধের সর, নারকেল তেল, অ্যালো ভেরা, কাঁচা হলুদ, আমলকীর মতো উপাদানে। এই ঋতুতে বাজার ভরা আমলকী আর কাঁচা হলুদ মিলবে। আমলকী ছোট ছোট টুকরো করে কেটে নিয়ে অল্প জল দিয়ে ব্লেন্ডারে পিষে নিন। তার পর জ্যুসটা ছেঁকে বের করে খেতে হবে। ছাঁকনিতে যে অংশটুকু পড়ে থাকবে, সেটা ফেলে না দিয়ে দুধের সর আর সামান্য আটার সঙ্গে মিশিয়ে নিন এই প্যাক ব্যবহার করে দেখুন, ত্বকের উজ্জ্বলতায় নিজেই অবাক হয়ে যাবেন! ময়েশ্চরাইজ়ার হিসেবে নারকেল তেলের তুলনা নেই, এ কথা সবাই জানেন। মুখ পরিষ্কার করে নেওয়ার পর নারকেল তেল ম্যাসাজ করুন। চাইলে অ্যালো ভেরাও মিশিয়ে নিতে পারেন তার সঙ্গে। অ্যালো ভেরা আর মধুর সঙ্গে সামান্য লেবুর রস মিশিয়ে চুলেও লাগাতে পারেন, তা ঠেকিয়ে রাখবে খুশকির আক্রমণ। নারকেল তেল কিন্তু ক্লেনজ়ার হিসেবেও খুব ভালো। পার্টি থেকে ফেরার পর মেকআপ তোলার জন্য কোনও রাসায়নিকের সাহায্য না নিয়ে নারকেল তেলের উপর ভরসা রাখুন। পুরু করে এক পরত নারকেল তেল লাগিয়ে নিন মুখে-গলায়-চোখে। কিছুক্ষণ অপেক্ষা করুন। তার পর ভেজা তুলো দিয়ে আলতো হাতে মুছে নিলেই সরে যাবে নাছোড় মেকআপ। তার পর ঠান্ডা গোলাপজল স্প্রে করুন মুখে। জানেন কি, শুকিয়ে যাওয়া গোলাপের পাপড়ি আধ ঘণ্টা ফুটিয়ে ঠান্ডা করে নিলেই গোলাপজল তৈরি হয়ে যাবে? ফ্রিজে রাখলে অন্তত সাতদিন ব্যবহারও করতে পারবেন নিশ্চিন্তে!

চুলের স্টাইলিংয়ে প্রচুর কেমিক্যাল ব্যবহার করছেন? তা হলে নিয়মিত অয়েল মাসাজ করা একান্ত জরুরি। কোল্ড প্রেসড সরষের তেল, নারকেল তেল, মেথি আর আমলকীর টুকরো একসঙ্গে ফুটিয়ে ছেঁকে নিন। ঠান্ডা হলে এই তেলটা কৌটোয় ভরে রাখুন। আপনার নিজস্ব এই তেল মাথায় খুব ভালো করে মালিশ করুন অল্প গরম করে। তার পর গরম জলে ভিজিয়ে নিংড়ে নেওয়া একটা তোয়ালে চুলে জড়িয়ে নিন খানিকক্ষণের জন্য। তেলটা মাথার গভীরে প্রবেশ করার পর শ্যাম্পু করে নেবেন। রিঠা, অামলকী আর শিকাকাই কিনতে পাওয়া যায় দোকানে। এগুলি একসঙ্গে ফুটিয়ে সারা রাত রেখে দিন। পরদিন সকালে শুকনো ফল কচলে নিয়ে ছেঁকে বোতলে ভরে রাখুন। এই হালকা শ্যাম্পু টানা 15 দিন ভালো থাকবে। ব্যবহার করে দেখুন একবার – চুলের জেল্লায় নিজেই চমকে যাবেন!TS

Related Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published.

© 2022 Tips24 - WordPress Theme by WPEnjoy